তাকবীরে তাশরীক পাঠ করার বিধান

0
110
views

যিলহজ্জ শরীফ মাসের ৯ তারিখ ফজর থেকে ১৩ তারিখ আসর পর্যন্ত মোট ২৩ ওয়াক্ত ফরয নামাযের পর-১,বার পাঠ করা ওয়াজিব,আর

৩ বার পাঠ করা মুসতাহাব।

اَللهُ اَكْبَرْ اَللهُ اَكْبَرْ لَا اِلٰهَ اِلَّا اللهُ وَاللهُ اَكْبَرْ اَللهُ اَكْبَرْ وَللهِ الْـحَمْدُ.

উচ্চারণ : “আল্লাহু আকবার, আল্লাহু আকবার, লা ইলাহা ইল্লাল্লাহু, ওয়াল্লাহু আকবার, আল্লাহু আকবার, ওয়া লিল্লাহিল হাম্দ।”

এই পবিত্র তাকবীর পাঠ করতে হয়। উক্ত পবিত্র তাকবীরখানাকেই ‘তাকবীরে তাশরীক’ বলে। জামায়াতে বা একাকী, মুসাফির অথবা মুকীম, শহর অথবা গ্রামে প্রত্যেককেই প্রতি ফরয নামাযের পর উক্ত তাকবীর পাঠ করতে হবে।

“দুররুল মুখতার” কিতাবে উল্লেখ আছে যে, “তাকবীরে তাশরীক একবার বলা ওয়াজিব, তবে যদি (কেউ) একাধিকবার বলে, তাহলে তা ফযীলতের কারণ হবে। আর “ফতওয়ায়ে শামী” কিতাবে উল্লেখ আছে-

وَقِيْلَ ثَلَاثَ مَرَّاتٍ

অর্থ : “কেউ কেউ বলেছেন (তাকবীরে তাশরীক) তিনবার।”

“গায়াতুল আওতার শরহে দুররুল মুখতার” কিতাবে উল্লেখ আছে-

اور واجب ہے تکبیر تشریق صحیح ترقول میں ایکبار بسبب اسکے مامور ہونے کے اور اگر زیادہ کہےایکبار سے تو ہوگا ثواب۰

অর্থ : “বিশুদ্ধ বর্ণনা মতে (মহান আল্লাহ পাক উনার পক্ষ থেকে) আদিষ্ট হওয়ার কারণে একবার তাকবীরে তাশরীক বলা ওয়াজিব। আর যদি একবারের চেয়ে অতিরিক্ত বলে তবে ছওয়াবের অধিকারী হবে।”

উপরোক্ত নির্ভরযোগ্য কিতাবের বর্ণনা দ্বারা সুস্পষ্টভাবে প্রমাণিত যে, একবার তাকবীরে তাশরীক বলা ওয়াজিব এবং তিনবার বলা মুস্তাহাব। (শামী, আইনী, আলমগীরী, হাশিয়ায়ে তাহতাবী, রদ্দুল মুহতার, দুররুল মুখতার)

এই সময়ের মধ্যে কেউ যদি পূর্বের (ফরয) ক্বাযা নামায আদায় করে তাহলে উক্ত নামাযের পর তাকে তাকবীরে তাশরীক পাঠ করতে হবে না। তবে আল্লাহ পাক না করুন কারো যদি এ সময়ের মধ্যে নামায ক্বাযা হয় আর উক্ত ক্বাযা নামায ১৩ যিলহজ্জ শরীফ উনার মধ্যে আদায় করা হয় তবে উক্ত ক্বাযা নামায আদায়ের পর প্রতি ওয়াক্তের জন্য তাকবীরে তাশরীক পাঠ করতে হবে। তাছাড়া উক্ত ২৩ ওয়াক্ত নামাযে তাকবীরে তাশরীক পড়তে ভুলে গেলে, স্মরণ হওয়া মাত্রই তা পাঠ করতে হবে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here