প্রশ্নঃ “রাসূল হানাফি ছিলেন, শাফেঈ ছিলেন, হাম্মলী ছিলেন, মালেকী ছিলেন, নাকি মুসলিম ছিলেন?

0
39
views

প্রশ্নঃ “রাসূল হানাফি ছিলেন, শাফেঈ ছিলেন, হাম্মলী ছিলেন, মালেকী ছিলেন, নাকি মুসলিম ছিলেন?

প্রশ্নঃ “রাসূল সাল্লাল্লাহো আলাইহি ওয়াসাল্লাম  হানাফি ছিলেন, শাফেঈ ছিলেন, হাম্মলী ছিলেন, মালেকী ছিলেন, নাকি মুসলিম ছিলেন?”

.

জবাবঃ এই মূর্খদের মত প্রশ্ন যারা করে তাদেরকে জিজ্ঞাসা করুন, নবী কি সাহাবী ছিলেন, তাবেঈ ছিলেন? তাবে তাবেঈ ছিলেন? নাকি মুসলিম ছিলেন?

.

নবী যেইভাবে সাহাবী না হয়ে, তাবেঈ না হয়ে, তাবে তাবেঈ না হয় এসকল পরিচয়ের অণুমোদন দিয়ে গেছেন, ঠিক তেমনিভাবে রসূল সল্লাল্লহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম হানাফি, শাফেঈ, মালেকি, হাম্বলী সকল মাযহাবের অণুমোদনদাতা ছিলেন। নিম্নোক্ত সহীহ হাদীসটি লক্ষ করুণ –

عَنْ أَبِي هُرَيْرَةَ أَنَّ رَسُولَ اللَّهِ صَلَّى اللَّهُ عَلَيْهِ وَسَلَّمَ قَالَ مَنْ دَعَا إِلَى هُدًى كَانَ لَهُ مِنْ الأَجْرِ مِثْلُ أُجُورِ مَنْ اتَّبَعَهُ لا يَنْقُصُ ذَلِكَ مِنْ أُجُورِهِمْ شَيْئًا وَمَنْ دَعَا إِلَى ضَلالَةٍ فَعَلَيْهِ مِن الإِثْمِ مِثْلُ آثَامِ مَنْ اتَّبَعَ لا يَنْقُصُ ذَلِكَ مِنْ آثَامِهِمْ شَيْئًا

হযরত আবূ হুরায়রা (রাদিয়াল্লাহু আনহু) থেকে বর্ণিত। রাসূল (সাল্লাল্লাহো আলাইহি ওয়াসাল্লাম) ইরশাদ করেছেন, “যে ব্যক্তি হিদায়াতের দিকে পথ প্রদর্শন করে, যে ব্যক্তি তার পথ অনুসরণ করবে, তার সওয়াবে কমতি করা ছাড়াই তার সমপরিমাণ সওয়াব পথ প্রদর্শনকারী পাবে। এমনিভাবে যে ব্যক্তি পথভ্রষ্টতার দিকে ডাকবে, এর দ্বারা যে ব্যক্তি গোনাহে লিপ্ত হবে, তার গোনাহের মাঝে কম করা ছাড়াই এর সমপরিমাণ গোনাহ আহবানকারী পাবে।”

.

{মুসনাদে আহমাদ, হাদীস নং-৯১৬০, সহীহ মুসলিম, হাদীস নং-২৬৭৪}

.

উপরোক্ত হাদীস দ্বারা রসূল সল্লাল্লহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম সকল মাযহাব, মাদ্রাসা, দ্বীন মানার সহায়ক সকল কাজের অণুমোদন দিয়ে গেছেন। তাহলে সহীহ হাদীস মানলে উপরোক্ত হাদীস মানতে আপনাদের সমস্যা কোথায়?

.

যেই কারণে সাহাবীগণ, তাবেঈগণ, তাবে তাবেঈনগণ যেভাবে এই পরিচয় নিয়েও মুসলিম ছিলেন। সেই একই কারণে আমরাও হানাফি, শাফেঈ, মালেকি, হাম্বলী হয়েও মুসলিম।

.

আরেকটি উদাহরণ থেকে বলি। একটি মসজিদে যারা নামাজ আদায় করে সকলেরই পরিচয় নামাজি।

.

★তবে এর মাঝে যিনি নামাজ পড়ান তাকে কি বলা হয়? – “ইমাম সাহেব।”

★যিনি আযান দেন তার কি পরিচয়?

  • “মুয়াজ্জিন সাহেব।”

★যারা নামাজ পড়েন তাদের কি বলা হয়?

  • “মুসুল্লি।”

এক মসজিদে একই কাতারে নামাজরত নামজিদের পরিচয় তিন রকমের। কেন সকলের পরিচয় শুধু নামাজি হলে দোষ কি?

.

আরেকটু সহজ ভাষায় বলি। আমাদের দেশের বিভিন্ন মানুষের বাড়ী বিভিন্ন জেলায় রয়েছে। তাই বলে কি কেউ প্রশ্ন করেন, ভাই আপনি ঢাকাবাসী না বাংলাদেশী? আপনি সিলেটবাসী না বাংলাদেশি?

.

সামান্য একটা দেশের ৬৪ টি টা জেলা হতে পারে। আর ইসলাম এতবড় একটি মহাসমুদ্র এর শাখা প্রশাখা, নদ-নদী থাকতে পারেনা? সকল নদী যেভাবে গিয়ে সাগরে মিলিত হয়।

তেমনি ইসলামের সকল সহীহ পথ, মাযহাব গিয়েও জান্নাতে মিলিত হবে ইনশাআল্লাহ।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here