বিষয়ঃ- সূর্য গ্রহণের নামাজ পড়ার নিয়ম

0
10
views

আবু মাসউদ আল-আনসারি (রাদিয়াল্লাহু তাআলা আনহু থেকে বর্ণিত তিনি বলেন, রাসূলুল্লাহ্‌ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বলেছেন, সূর্যগ্রহন ও চন্দ্রগ্রহন আল্লাহর নিদর্শনসমূহের মধ্য থেকে দুইটি নিদর্শন। এ দুইটির মাধ্যমে আল্লাহ্‌ বান্দাদের মাঝে ভীতির সঞ্চার করেন। কোন মানুষের মৃত্যুর কারণে এ দুটোর গ্রহণ ঘটে না। কাজেই যখন গ্রহণ দেখবে, তখন তোমরা এ পরিস্থিতি মুক্ত না হওয়া পর্যন্ত নামায আদায় করবে এবং দোয়া করতে থাকবে।”।[সহিহ বুখারী (১০৪১) ও সহিহ মুসলিম(৯১১)]

আবূ মূসা (রাদিয়াল্লাহু তাআলা আনহু) থেকে বর্ণিত, তিনি বলেন: “একবার সূর্যগ্রহণ হল। তখন নবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম ভীতসন্ত্রস্ত হয়ে উঠে দাঁড়ালেন; তিনি কিয়ামত সংঘটিত হওয়ার আশঙ্কা করছিলেন। এরপর তিনি মসজিদে আসেন। এর আগে আমি তাঁকে যেমন করতে দেখেছি, তার চেয়ে দীর্ঘ সময় ধরে কিয়াম, রুকু ও সিজদা সহকারে নামায আদায় করলেন। আর তিনি বললেন: এগুলো হল আল্লাহ্‌ কর্তৃক প্রেরিত নিদর্শন; এগুলো কারো মৃত্যু বা জন্মের কারণে ঘটে না। বরং আল্লাহ তাআলা এর দ্বারা তাঁর বান্দাদের মাঝে ভীতির সঞ্চার করেন। কাজেই যখন তোমরা এর কিছু দেখতে পাবে, তখন ভীত বিহ্বল অবস্থায় আল্লাহর যিকির, দু’আ ও ইস্তিগফারে মগ্ন হবে।”।[সহিহ বুখারী (১০৫৯) ও সহিহ মুসলিম (৯১২)]

সূর্য গ্রহণের নামাজ

সূর্য গ্রহণের নামাজ হলাে সুন্নাতে মুয়াক্কাদা। জামাতের সহিত আদায় করা হলাে মুস্তাহাব। জামাতের সহিত আদায় করতে হলে শুধুমাত্র খােতবা ব্যতীত জুমার সকল শর্ত পাওয়া যাওয়া প্রয়ােজন। আর ওই ব্যক্তি এই নামাজের ইমাম হবেন যিনি জুম্মার নামাজের ইমাম হন। একাকীও পড়া বৈধ।বাড়িতে হােক কিংবা মসজিদে।

নামাজ পড়ার নিয়ম:

অন্যান্য নফল নামাজের ন্যায় 2 রাকায়াত। তবে অধিকও আদায় করা যায়। এই নামাজের ক্ষেত্রে বড় বড় সূরা পাঠ করা উত্তম এবং রুকু ও সাজদা লম্বা করা উত্তম।

মাসলা:- এই নামাজের জন্য আযান ইকামত উচ্চস্বরে কিরাত করা বৈধ নয়। মাসলা:- নামাজ শেষে মিলিতভাবে উচ্চস্বরে দোয়া করা বৈধ। (বাহারে শরীয়ত)

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here