বিষয় -ইস্তেনজা খানা মসজিদ থেকে কতটুকু দূরে হওয়া উচিত?

0
11
views

ইস্তেনজা খানা মসজিদ থেকে কতটুকু দূরে হওয়া উচিত?

ইমাম আহমদ রযা রাদিয়াললাহু আনহু এর দরবারে প্রশ্ন করা হল: নামাযীদের জন্য টয়লেট মসজিদ থেকে কতটুকু দূরে তৈরী করা যাবে?

এর উত্তরে আমার আক্বা আলা হযরত রাদিয়াললাহু আনহু বললেন: মসজিদকে দুর্গন্ধ থেকে রক্ষা করা ওয়াজিব। এজন্য মসজিদে কেরোসিন তেল জ্বালানো হারাম। মসজিদে দিয়াশলাই (অর্থাৎ দুর্গন্ধযুক্ত বারুদ বিশিষ্ট ! ম্যাচের কাঠি) জ্বালানো হারাম। এমন কি হাদীস পাকে ইরশাদ হয়েছে: মসজিদে কাঁচা মাংস নিয়ে যাওয়া জায়েজ নেই।

(ইবনে মাজাহ ১ম খণ্ড, ৪১ পৃষ্ঠা, হাসীস -৪৮,
অথচ কাঁচা মাংসের দুর্গন্ধ অনেকটা হালকা। অতএব যেখান থেকে মসজিদে দুর্গন্ধ পৌঁছে সেখান পর্যন্ত টয়লেট, প্রস্রাবখানা তৈরী করাতে নিষেধ রয়েছে। (ফাতওয়ায়ে রেজবীয়া, ১৬ খন্ড, ২৩২ পৃষ্ঠা) কাঁচা মাংসের গন্ধ হালকা এরপরও যেহেতু মসজিদে তা নিয়ে যাওয়া জায়েজ নেই সেহেতু কাঁচা মাছ • নিয়ে যাওয়া আরো বেশি না জায়েজ হবে। কেননা তার গন্ধ মাংসের চেয়ে বেশি গাঢ়। কোন কোন সময় রান্নাকারীর অসতর্কতার কারণে মাছের তরকারী খাওয়ার পর হাত ও মুখে খুব খারাপ গন্ধ হয়ে যায়। এ অবস্থায় গন্ধ দূর না করে মসজিদে যাবেন না। যখন খাবার পরিস্কার করা হয় তখন যথেষ্ট দুর্গন্ধ ছড়ায় এজন্য (শৌচাগার ও মসজিদের মধ্যে) এতটুকু দূরত্বে রাখা দরকার। যাতে পরিস্কার করায় সময়ও মসজিদে দুর্গন্ধ প্রবেশ না করে। প্রস্রাবখানা মসজিদের বাউন্ডারীতে করতে হলে প্রয়োজনে দেয়াল ভেঙ্গে বাইরের দিকে দরজা করেও মসজিদকে দুর্গন্ধ মুক্ত রাখা যায়।
ফায়যানে সুন্নাত ৯৩৪ পৃষ্ঠা

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here