বিষয়-জাকাতের বিষয়ে কিছু জরুরী মাসাইল

0
41
views

আসসালামু আলাইকুম ওয়া রাহমাতুল্লাহি ওয়া বারাকাতুহু

যাকাত সম্পর্কিত প্রশ্ন উত্তরের মাধ্যমে কিছু আলোচনা

প্রশ্ন যাকাত কাকে বলা হয়?
উত্তর যাকাত হচ্ছে শরীয়তের মধ্যে আল্লাহ তা’আলার জন্য সম্পদের একটি নির্দিষ্ট অংশের যা শরীয়তে নির্দিষ্ট করা হয়েছে কোন মুসলমান ফকির কে মালিক বানিয়ে দেওয়া। তবে যেন ঐ ফকির হাশমি বা তার মুক্ত করা গোলাম না হয়।

প্রশ্ন যাকাতের ফরজিতের ইনকার করা কেমন?
উত্তর যাকাতের ফার্জিয়াত পবিত্র কোরআন হইতে সাবিত রয়েছে তাই তার অস্বীকারকারী কাফের হয়ে যাবে।

প্রশ্ন যাকাত দিলে কি কি ফজিলত রয়েছে?
উত্তর 1) ঈমান পরিপূর্ণ হওয়ার একটি মাধ্যম(হাদিস)
2) আল্লাহ তাআলার রহমত বর্ষিত হয়(সুরা আরাফ 156)
3) তাকওয়া এবং পরহেযগারী অর্জন হয়।( সুরা বাকারা 3)
4) সফলতার রাস্তা।(আল-মুমিন 1-3)
5) আল্লাহ তায়া লার সাহায্যের হক্বদার। (সূরা হাজ 40-41)
6) সৎ ব্যক্তিত্বের মধ্যে গণ্য। (সুরা তাওবা)
7) কোন মুসলমান ভাইয়ের দিলে খুশি করানোর সওয়াব।
8) ইসলামী ভ্রাতৃত্বের উত্তম প্রকাশ্য।(বোখারী)
9) হুযুর সাল্লাল্লাহু তা’আলা আলাইহি ওয়াসাল্লাম এর ফরমানের অনুকূল করা। (মুসলিম)
10) সম্পদ পবিত্র হয়ে যায়।(মুসনাদে ইমাম আহমদ বিন হাম্বল)
11) খারাপ গুণাবলী থেকে মুক্তি।
12) সম্পদে বরকত হয়। (সাবা 39 ,সূরা বাকারা 261 262 ,মীরাতুল মানাজিহ খন্ড 3 পৃষ্ঠা 89)
13) মুসিবত হতে পরিত্রান।( আল মুজামুল আওসাত)
14) সম্পদের নিরাপত্তা। (আবু দাউদ)
15) মুক্তিদান কর্ম বা প্রয়োজন পূর্ণ। (মুসলিম, তিরমিজি)
16) দোয়ার অংশীদার হাওয়া।(বোখারী)

প্রশ্ন যাকাত না দিলে কি কি ক্ষতি রয়েছে?
উত্তর 1) সেসব ফজিলত থেকে বঞ্চিত যেসব যাকাত দিলে পাওয়া যায়।
2) কিপটে বৈশিষ্ট্যযুক্ত ব্যক্তি হওয়া।( বখিল হওয়া) যার ফলাফল হচ্ছে আগুনে প্রবেশ করা (শায়াবুল ঈমান)
3) সম্পদ ধ্বংস হওয়ার কারণ।(মাজমাউজ জাওয়ায়েদ)
4) ঐক্য ভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হওয়া।(মুজামুল আওসাত)
5) অভিশপ্ত ব্যক্তি হওয়া অর্থাৎ ওই ব্যক্তি যার উপর লানত রয়েছে। (সহীহ ইবনে খুযাইমা)
6) সেই সম্পদ শাস্তি রূপে তার মালিকের সম্মুখীন হবে। (সহীহ বুখারী, সূরা তাওবা 34-35)
7) তার যথাযথ ভাবে অর্থাৎ কঠিন ভাবে হিসাব নেওয়া হবে। (মাজমাউজ জাওয়ায়েদ)
8) জাহান্নামের আজাব ভোগী হতে হবে। (আজ্জাওয়াজির)

প্রশ্ন যাকাত কে যাকাত কেন বলা হয়?
উত্তর যাকাতের অর্থ হচ্ছে পবিত্রতা উন্নতি যেহেতু যেই সম্পদ থেকে যাকাত বের করা হয় সে সম্পদ পবিত্র হয়ে যায় এবং সেখানে বরকত হতে থাকে তাই তাকে যাকাত বলা হয়।

প্রশ্ন যাকাত কার উপর ফরজ হয়?
উত্তর যাকাত আকিল বালিগ আজাদ মুসলমানের উপর কিছু শর্ত অনুযায়ী ফরজ হয় সেই শর্ত গুলি হচ্ছে,
1) নিসাবের মালিক হওয়া।
2) নেসাব নামি হওয়া(যেমন,সোনা,চাঁদি, টাকা )
3) নেসাব নিজের অধীনে হওয়া।
4) নেসাব হাজাতে আশলিয়ার ব্যতীত হওয়া।
5) নেসাব ঋণমুক্ত হওয়া।
6) ঐ নেসাবের উপর এক বছর অতিবাহিত হওয়া (বাহারে শরীয়ত)

প্রশ্ন কতটা সম্পদ থাকলে সাহেবে নেসাব বা মালিকে নেসাব হওয়া যায়?
উত্তর 1) কারো কাছে যদি সাড়ে সাত তোলা(৮ভরি)সোনা থাকে সে মালিকে নেসাব।
2) কারো কাছে যদি সাড়ে 52 (৫৬ভরি)তোলা চাদি থাকে সেও মালিক নেসাব
3) কারো কাছে যদি সেই পরিমাণ মালে তেজারত (ব্যবসার সম্পদ)থাকে সেও মালিকে নেসাব।
4) কারো কাছে যদি হাজতে আসলিয়া ব্যতীত (নিজের প্রয়োজনীয় জিনিস ছাড়া) সেই পরিমাণ সামান থাকে সেও মালিকে নেসাব। অর্থাৎ এসব জিনিস থাকলে তাকে যাকাত পাবে।

প্রশ্ন কারোর কাছে শুধু টাকা আছে সোনা বা চাদি নেই তার উপর যাকাত কেমন করে ফরজ হবে একটু উদাহরণ স্বরূপ বুঝিয়ে বললে ভাল হয়?
উত্তর শুধু টাকা আছে তো সম্পূর্ণ হিসেব করে নিতে হবে মোট কত টাকা হচ্ছে তারপরে দেখতে হবে যে সে টাকা সোনার বা চাদির নেসাবে পৌঁছে যাচ্ছে কিনা যেহেতু, সোনার বেশি দাম এবং চাদির কম দাম তাই আগে চাদির হিসেব করে নিতে হবে কারণ তার নেসাবে পৌঁছে গেলেই যাকাত ফরজ হয়ে যাবে।
উদাহরণ: (নিজের এলাকা অনুযায়ী দাম মিলিয়ে নিতে হবে )ধরা যাক ‘ চাদির দাম 500 টাকা তাহলে সাড়ে 52 তোলা অর্থাৎ ছাপান্ন ভরির দাম হবে 500✖56=28000 টাকা অতএব আজকে রমজান মাসের 13 তারিখে আমার কাছে 28 হাজার টাকা জমা হয়েছে বা তার বেশি টাকা জমা হয়েছে তাই সামনে রমজান মাসের 13 তারিখে যদি আমার কাছে 28 হাজার বা তার উর্ধে টাকা থাকে তাহলে আমাকে 40 ভাগের এক ভাগ যাকাত দিতে হবে।

প্রশ্ন যদি বছরের মধ্যে টাকা কম বেশি হতে থাকে তাহলে কি সেই তারিখ অনুযায়ী দিতে হবে না নতুন তারিখ নিতে হবে?
উত্তর বছরের মধ্যে টাকা কম বেশি হলে সেটা হিসেবে আসবে না যেমন 28 হাজার টাকা থেকে কিছু কমে 20 হাজার টাকা হয়ে গেল কিন্তু বছরের শেষে আবার বেড়ে 28 হাজার বা তার উর্ধে টাকা জমা হয়ে গেল যেমন উদাহরণে একটি তারিখ বলা হয়েছে অর্থাৎ বছরের প্রথমে এবং বছরের শেষে যদি নেসাব পাওয়া যায় তাহলে যাকাত দিতে হবে। তবে যদি সম্পূর্ণ টাকা নষ্ট হয়ে যায় বা শেষ হয়ে যায় তারপরে আবার নতুন করে নেসাব পাওয়া যায় সেই অবস্থায় নতুন তারিখ হিসেবে আনতে হবে যেই সময় থেকে নেসাব পাওয়া যাবে।

প্রশ্ন শুধু সোনা আছে বা শুধু চাদি আছে টাকা মোটেই নেই তাহলে?
উত্তর শুধু সোনা আছে চাদি আর টাকা নেই তাহলে যতক্ষণ পর্যন্ত সোনা সাড়ে সাত তোলা (আট ভরি) না হবে ততক্ষণ পর্যন্ত তার যাকাত লাগবে না ।আর শুধু চাদি থাকলে যতক্ষণ পর্যন্ত সাড়ে 52 তোলা (ছাপান্ন ভরি) না হবে ততক্ষণ পর্যন্ত যাকাত লাগবে না।

প্রশ্ন কিছু সোনা ও কিছু চাদি বা কিছু সোনা ও টাকা বা কিছু চাদি ও টাকা বা কিছু সোনা কিছু চাদি কিছু টাকা রয়েছে তাদের এক এক করে হিসেব করলে নেসাবে পৌঁছায়না কিন্তু সব একত্রিত করে হিসেব করলে নেসাবে পৌঁছে যাচ্ছে তাহলে কি যাকাত দিতে হবে?
উত্তর অবশ্যই উপরোক্ত জিনিসগুলির হিসেব করে টাকায় আনতে হবে, যদি টোটাল টাকা নেসাবে পৌঁছে যায় তাহলে যাকাত দিতে হবে।

প্রশ্ন কতটা যাকাত লাগে?
উত্তর চত্বরিংশ অর্থাৎ চল্লিশ ভাগের এক ভাগ যাকাত দিতে হয়।

প্রশ্ন নেসাব এর চেয়ে বেশি টাকা হলে বাড়তি টাকা কত পরিমান হলে তার ও যাকাত লাগবে ?
উত্তর বাড়তি টাকা নেসাবের পঞ্চমাংশ (নেসাবের পাঁচ ভাগের এক ভাগ) হলে তার ও যাকাত লাগবে। উদাহরণস্বরূপ 400 টাকা ভরি দরে চাদির নেসাব 22 হাজার 400 টাকা হয় কারো কাছে যদি 24 হাজার টাকা থাকে তাহলে তাকে 22 হাজার 400 টাকারই যাকাত দিতে হবে কারণ বারোশো টাকা নেসাবের পঞ্চমাংশ হয় না। আর যদি 26 হাজার 880 টাকা থাকে তাহলে তাকে 26 হাজার 880 টাকারি যাকাত দিতে হবে কারণ বাড়তি চার হাজার 480 টাকা নেসাবের পঞ্চমাংশ হয়ে যাচ্ছে অর্থাৎ পঞ্চম অংশের কম থাকলে মাফ রয়েছে।

প্রশ্ন সোনা চাদির দাম ধরলে কোন সময়ের ধরতে হবে ?
উত্তর যেসময়ে যাকাতের বছর পূর্ণ হয়।

প্রশ্ন যে জিনিস বন্ধক দেওয়া রয়েছে তার কি যাকাত লাগবে ?
উত্তর না কারণ সেটা তার অধীনে নেই আর যার কাছে আছে সেও সেটার মালিক নয় অতএব তাকেও লাগবে না।

প্রশ্ন কেউ যদি হজ করার জন্য টাকা জমা রাখে তারও কি যাকাত লাগবে?
উত্তর হ্যাঁ শর্তাবলী পাওয়া গেলে তার ও যাকাত লাগবে।

প্রশ্ন মালে তেজারত বা বাণিজ্যের পণ্য দ্রব্য কাকে বলা হয়?
উত্তর মালে তেজারত বা ব্যবসার সম্পদ ওই জিনিস কে বলা হয় যেটা ক্রয় করার সময় নিয়ত থাকে যে সেটাকে বিক্রি করে লাভ অর্জন করবে যেমন একজন মোটরসাইকেল ক্রয় করল এই নিয়তে যে সেটাকে বিক্রি করে লাভ করবে তাহলে সেটা মালে তেজারত হয়ে গেল। মালে তেজারতের দাম যদি সোনা চাঁদির নেসাবে পৌঁছে যায় তাহলে তার যাকাত দিতে হবে।

প্রশ্ন যদি কেনার সময় বিক্রি করার নিয়ত না থাকে শুধু ব্যবহার করার জন্য থাকে তবে পরে সে লাভ দেখে বিক্রি করতে চাইছে তার কি যাকাত লাগবে?
উত্তর না তার যাকাত লাগবে না কারণ সেটা মালে তেজারতে গণ্য হয় নি।

প্রশ্ন শুধু মালে তেজারতের উপর না যতটা লাভ তার উপর ও যাকাত ফরজ হবে?
উত্তর বছরের শেষে মালে তেজারতের দাম এবং যতটা লাভ হয়েছে সমস্তর যাকাত বের করতে হবে।

প্রশ্ন একই জিনিসের উপরে নেসাবের পর্যায়ে প্রত্যেক বছরই কি যাকাত লাগবে
উত্তর হ্যাঁ যাকাতের শর্তাবলী পাওয়ার অবস্থায় প্রত্যেক বছরই তার যাকাত লাগবে।

প্রশ্ন তজারতের মাল নেওয়ার পর এই নিয়ত হয়ে গেল যে এটা ব্যবহার করার জন্য বেশি উপযোগী হবে এবং ব্যবহার করতে লাগল তবে কোন অসুবিধায় পড়ে যদি সেটা আবার বিক্রির করার নিয়ত করে নেই তাহলে কি তার যাকাত লাগবে?
উত্তর নিয়ত যদি বদলে নেয় এবং পরে আবার তার বিক্রি করার নিয়ত করে তাহলে সেটা মালে তেজারতে গণ্য হবে না অতএব তার যাকাত লাগবে না।

প্রশ্ন ব্যবসা করার জন্য যদি দোকান ক্রয় করে সেই দোকানের কি যাকাত লাগবে?
উত্তর না তার যাকাত লাগবেনা ।

প্রশ্ন দোকান ক্রয় করার জন্য যদি এডভান্স কিছু টাকা দিয়ে রাখে তাহলে কি সেই টাকা নেসাবে গণ্য হবে?
উত্তর হ্যাঁ সেটা নেসাবে গণ্য হবে। যেমন কাউকে ধার দিলে গণ্য হয়।

প্রশ্ন ভাড়া দোকান বা ভাড়া গাড়ির উপর কি যাকাত ফরজ হবে?
উত্তর ভাড়া দোকান বা ভাড়া গাড়ির যাকাত দিতে হবে না। তবে তার দ্বারা যেটা লাভ হবে সেটা নেসাবে গণ্য হবে।

প্রশ্ন কম্পিউটার ,ফ্রিজ ইত্যাদি যেগুলি বাড়িতে আসবাবপত্র হিসেবে থাকে সেগুলির কি যাকাত লাগবে?
উত্তর এইগুলির যাকাত লাগবে না ।কারণ এইসব নামী সম্পদ নয়।

প্রশ্ন নোটের কি যাকাত লাগবে?
উত্তর হ্যাঁ নোটের যাকাত লাগবে যদি সেই নোটের চলন থাকে।

প্রশ্ন কত নোটের যাকাত লাগবে?
উত্তর সেই নোটের দাম যদি চাদির নেসাবে পৌঁছে যায় তাহলে তার যাকাত লাগবে।

প্রশ্ন ব্যাংকের টাকার উপর কি যাকাত লাগবে?
উত্তর ব্যাংকের টাকার যাকাত লাগবে কারণ সেটা ধারের মত। তবে ওই সময় আদায় করা ওয়াজিব হবে যখন কমপক্ষে তার পঞ্চমাংশ নিজের হাতে চলে আসবে।

ফক্বীহে আজাম হযরত আল্লামা মুফতি মোহাম্মদ শরিফুল হক আমজাদী আলাইহি রাহমাতুল্লাহিল হাদী ফাতাওয়া আমজাদিয়ার হাশীয়ায় লিখেছেন যে, ব্যাংকে যতটা টাকা জমা থাকবে প্রতি বছর যেন তার যাকাত আদায় করতে থাকে। কারণ মৃত্যুর কোন নির্ধারিত সময় নেই, তারপর তার ওয়ারিশগণ তার পক্ষ হতে যাকাত আদায় করবে কিনা তারও কোন ভরসা নেই। শয়তানের বিভ্রান্তি করতে সময় লাগে না।

আল্লাহ তা’আলা যেন আমাদের সকল সুন্নি মুসলমানদেরকে ইসলামের বিধান অনুযায়ী চলার তৌফিক দান করেন এবং যেন আমাদের ঈমানের সহিত মৃত্যুবরণ হয় আমিন বেজাহে সায়্যিদিল মুরসালিন সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম।

ইতি
দুয়ার তালিব
মোহাম্মদ রফিক্ব
গোয়ালমাল, মুরারই, বীরভূম।
মাদ্রাসা কালিমীয়া সিরাজুল উলুম
জগদীশপুর ,কালিয়াচক, মালদা।
পশ্চিমবঙ্গ

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here