বিষয়- হযরত ইমাম হুসাইন রদ্বিয়াল্লাহু তায়ালা আনহু উনার মক্কা শরীফ-এর উদ্দেশ্যে মদীনা শরীফ ত্যাগ: ✔

0
24
views

হযরত ইমাম হুসাইন রদ্বিয়াল্লাহু তায়ালা আনহু এভাবে মদীনা শরীফ-এর গভর্নর ওলীদের বেয়াদবীপূর্ণ প্রস্তাব অস্বীকার করে যখন তার দরবার থেকে নিজের আপনজনদের কাছে ফিরে আসলেন এবং সবাইকে একত্রিত করে বললেন, আমার প্রিয়জনেরা! যদি আমি পবিত্র মদীনা শহরে অবস্থান করি, এরা আমাকে ইয়াযীদের বাইয়াত করার জন্য বাধ্য করবে, কিন্তু আমি কখনও বাইয়াত গ্রহণ করতে পারবো না। তারা বাধ্য করলে নিশ্চয়ই যুদ্ধ হবে, ফাসাদ হবে; কিন্তু আমি চাইনা আমার কারণে মদীনা শরীফ-এ লড়াই বা ফাসাদ হোক। আমার মতে, এটাই সমীচীন হবে যে, এখান থেকে হিজরত করে মক্কা শরীফ-এ চলে যাওয়া। নিজের আপনজনেরা বললেন, ‘আপনি আমাদের অভিভাবক; আমাদেরকে যা হুকুম করবেন তাই মেনে নেব।’ অতঃপর তিনি মদীনা শরীফ থেকে হিজরত করার সিদ্ধান্ত নিলেন।

আহ! অবস্থা কেমন সঙ্গীন হয়ে গিয়েছিল যে, ইমাম হুসাইন রদ্বিয়াল্লাহু তায়ালা আনহুকে সেই মদীনা শরীফ ত্যাগ করতে হচ্ছিল, যে মদীনা শরীফ-এ হযরত ইমাম হুসাইন রদ্বিয়াল্লাহু আনহু উনার নানাজান ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার রওযা শরীফ অবস্থিত। তাঁর নানাজান ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার রওযা শরীফ যিয়ারত করার উদ্দেশ্যে হাজার হাজার টাকা পয়সা ব্যয় করে, আপনজনদের বিরহ-বেদনা সহ্য করে, ব্যবসা-বাণিজ্য বন্ধ করে দূর-দূরান্ত থেকে লোকেরা আসে এই পবিত্র মদীনা মুনাওওয়ারায়। কিন্তু আফসুস, আজ সেই মদীনা শরীফকে তিনি ত্যাগ করছেন, যেই মদীনা শরীফ ছিল উনারই। নবীজী ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার নয়নের মণি, আদরের দুলাল ছিলেন তিনি। ক্রন্দনরত অবস্থায় তিনি নানাজান ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার রওযা পাক-এ উপস্থিত হয়ে বিদায়ী সালাম পেশ করলেন এবং অশ্রুসজল নয়নে নানাজান ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার অনুমতি নিয়ে আত্মীয়-পরিজন সহকারে ৬০ হিজরী ৪ঠা শা’বান তারিখে মদীনা শরীফ থেকে হিজরত করে মক্কা শরীফ-এ চলে গেলেন।

মক্কা শরীফ-এ গমনের কারণ
আল্লাহ তায়ালা ইরশাদ ফরমান-
ومن دخله كان امنا
অর্থ: ‘যে হেরেম শরীফ-এ প্রবেশ করলো, সে নিরাপদ আশ্রয়ে এসে গেল।’ (সূরা আলে ইমরান-৯৭) কেননা হেরেম শরীফ-এর অভ্যন্তরে ঝগড়া-বিবাদ, খুন-খারাবী নাজায়িয ও হারাম। এমনকি হেরেম শরীফ-এর সীমানায় উঁকুন মারা পর্যন্ত নিষেধ। তবে সাপ, বিচ্ছু ইত্যাদি মারতে পারে। কিন্তু যে সব পশু-পাখি মানুষের কোন ক্ষতি করে না সেগুলো মারা জায়িয নেই। আর মু’মিনদের ইজ্জত-সম্মান তাঁদের শান-মান এটাতো অনেক ঊর্ধ্বের বিষয়। তাই হযরত ইমাম হুসাইন আলাইহিস সালাম চিন্তা করলেন যে, হেরেম শরীফ-এর অভ্যন্তরে যেহেতু ঝগড়া-বিবাদ, খুন-খারাবী নিষেধ সেহেতু কেউ আমার সাথে এখানে ঝগড়া-বিবাদ করতে আসবে না। তাই হেরেম শরীফ-এর সীমানায় অবস্থান করে আল্লাহ তা’য়ালার ইবাদত বন্দেগীতে বাকী জীবন কাটিয়ে দেব। এ মনোভাব নিয়ে তিনি মদীনা শরীফ থেকে মক্কা শরীফ-এ চলে আসলেন।
হযরত ইমাম হুসাইন রাদ্বিয়াল্লাহু আয়ালা আনহু উনার কূফা গমন:

আল্লাহ তায়ালার কি যে মহিমা! যেদিন হযরত ইমাম মুসলিম রহমতুল্লাহি আলাইহি কূফায় শহীদ হলেন, সেদিনই অর্থাৎ ৬০ হিজরী ৩রা যিলহজ্জ তারিখে হযরত ইমাম হুসাইন আলাইহিস সালাম প্রিয়জন ও আপনজনদের নিয়ে মক্কা শরীফ থেকে কূফার উদ্দেশ্যে রওয়ানা করলেন। কারণ, উনার কাছে চিঠি পৌঁছেছিল যে, কূফার অবস্থা খুবই সন্তোষজনক, তিনি যেন বিনা দ্বিধায় অনতিবিলম্বে কূফায় তাশরীফ নেন। তিনি তাঁর আহলিয়া, বোন, ছেলে-মেয়ে এমনকি দুগ্ধপোষ্য শিশুদেরকেও সঙ্গে নিলেন এবং মক্কা শরীফ থেকে বের হলেন। উলামায়ে কিরাম লিখেছেন যে, হযরত ইমাম হুসাইন রাদ্বিয়াল্লাহু আয়ালা আনহু উনার কাফেলায় মুখতালিফ বর্ণনা, কোন কোন বর্ণনায় ৭২ জন আর কোন কোন বর্ণনায় ৮২ জন ছিলেন। যার মধ্যে মহিলা, দুগ্ধপোষ্য শিশুও ছিলেন এবং উনার সঙ্গে কয়েকজন যুবক খাদিম-খুদ্দামও ছিলেন।

এখানে একটি কথা বিশেষভাবে স্মরণযোগ্য যে, হযরত ইমাম হুসাইন রাদ্বিয়াল্লাহু আয়ালা আনহু যুদ্ধ করার কিংবা মোকাবিলা করার উদ্দেশ্যে কখনও বের হননি। কেননা, তিনি যদি যুদ্ধ বা মোকাবিলা করার উদ্দেশ্যে বের হতেন তাহলে, তিনি কখনও মেয়েলোক ও দুগ্ধপোষ্য শিশুদের নিয়ে বের হতেন না। হযরত ইমাম হুসাইন রাদ্বিয়াল্লাহু আয়ালা আনহু উনার নিজের আহলিয়া ও দুগ্ধপোষ্য শিশুদের নিয়ে বের হওয়াটা এটাই প্রমাণ করে যে, তিনি যুদ্ধ কিংবা মোকাবিলার উদ্দেশ্যে বের হননি। তাঁর কাছে তো চিঠি এসেছে যে, সেখানকার অবস্থা খুবই সন্তোষজনক, চল্লিশ হাজার লোক বাইয়াত গ্রহণ করেছে, কূফাবাসীরা বেশ মেহমানদারী করছে। তাই তিনি তাঁর আপন-জনদেরকে নিয়ে বের হয়েছেন এবং যুদ্ধ করার কোন অস্ত্র-শস্ত্র রাখেননি। হযরত ইমাম হুসাইন রাদ্বিয়াল্লাহু আয়ালা আনহু যখন মক্কা শরীফ থেকে কূফার উদ্দেশ্যে বের হলেন, পথে তিনি হযরত ইমাম মুসলিম রহমতুল্লাহি আলাইহি-এর শাহাদাত বরণের খবর পেলেন।

হযরত ইমাম মুসলিম রহমতুল্লাহি আলাইহি-এর শাহাদাতের খবর শুনে তিনি এবং তাঁর সফরসঙ্গীগণ একেবারে হতবাক হয়ে গেলেন। অর্থাৎ কোথা থেকে কি হয়ে গেল। মাত্র কয়েকদিন আগে হযরত ইমাম মুসলিম রহমতুল্লাহি আলাইহি-এর চিঠি আসলো, কূফার অবস্থা খুবই সন্তোষজনক। অথচ এখন শুনতে পাচ্ছি উনাকে শহীদ করা হয়েছে। এটা কি ধরণের ঘটনা! যা হোক, উনারা পিছপা হলেন না। সম্মুখপানে অগ্রসর হলেন। উনাদের সিদ্ধান্ত হলো, ওখানে গিয়ে দেখি অবস্থা কি এবং কিভাবে এত তাড়াতাড়ি এ ধরণের ঘটনা ঘটলো, তা অবহিত হওয়া। এ মনোভাব নিয়ে উনারা সামনে অগ্রসর হলেন।কারবালার প্রান্তরে হযরত ইমাম হুসাইন রাদ্বিয়াল্লাহু আয়ালা আনহু কূফা থেকে দুই মঞ্জিল দূরত্বে কারবালার প্রান্তরে ৬১ হিজরী ২রা মুর্হরম তারিখে পৌঁছলেন। যখন তাঁরা পৌঁছলেন, তখন হুর বিন ইয়াযীদ রিয়াহী এক হাজার সৈন্য নিয়ে হযরত ইমাম হুসাইন আলাইহিস সালাম উনার সাথে মোলাকাত করলো এবং বললো- হে সম্মানিত ইমাম হুসাইন রদ্বিয়াল্লাহু তায়ালা আনহু! আমি আপনাকে গ্রেফতার করার জন্য এসেছি। তখন ইমাম হুসাইন রদ্বিয়াল্লাহু তায়ালা আনহু জিজ্ঞাসা করলেন, কেন? সে বললো, ‘তা আমি জানি না, তবে কূফার গভর্নর ইবনে যিয়াদের নির্দেশ- আপনাকে যেখানে পাওয়া যাবে, গ্রেফতার করে তার কাছে যেন পৌঁছে দেয়া হয়। হযরত ইমাম হুসাইন আলাইহিস সালাম ফরমালেন, আমার কি অপরাধ? সে বললো, আপনি ইয়াযীদের বিরুদ্ধে বিদ্রোহ করেছেন, ইয়াযীদের বিরুদ্ধে এখানে জন অসন্তোষ সৃষ্টি করেছেন এবং জনগণকে বাইয়াত করিয়েছেন। হযরত ইমাম হুসাইন আলাইহিস সালাম বললেন, ‘আমি কোন জন অসন্তোষ সৃষ্টি করিনি এবং ক্ষমতা দখলেরও কোন ইচ্ছা আমার নেই। কূফাবাসীই আমার কাছে চিঠি লিখেছে, যার কারণে আমি এখানে আসতে বাধ্য হয়েছি। তবে যদি কূফাবাসী বেঈমানী করে এবং অবস্থার যদি পরিবর্তন হয়, তাহলে আমি ফিরে যেতে রাজি আছি। যখন হযরত ইমাম হুসাইন আলাইহিস সালাম হুরের সঙ্গে আলোচনা করলেন এবং হুরকে সমস্ত বিষয় অবহিত করলেন, তখন সে খুবই দুঃখিত হলো। হুর বললো, এই মুহূর্তে যদি আমি আপনাকে চলে যেতে দেই, আমার সঙ্গী-সাথীদের মধ্যে কেউ হয়তো ইবনে যিয়াদের কাছে গিয়ে আমার বিরুদ্ধে অভিযোগ করতে পারে এবং ইবনে যিয়াদ আমার উপর যুলুম করতে পারে। সে বলবে, ‘তুমি জেনে-শুনে দুশমনকে ছেড়ে দিয়েছ, আপোষে যাওয়ার সুযোগ করে দিয়েছ।’ ফলে আমার উপর মুছীবতের পাহাড় নাযিল হবে। তাই আপনি একটা কাজ করতে পারেন- এভাবে আমার সঙ্গে সারাদিন কথাবার্তা চালিয়ে যেতে থাকেন, যখন রাত হবে, আমার সৈন্যরা শুয়ে পড়বে এবং অন্ধকার হয়ে যাবে, তখন আপনি আপনার আপনজনদের নিয়ে এখান থেকে চলে যাবেন। সকালে আপনাকে খোঁজ করব না, আপনার পিছু নেব না। সোজা ইবনে যিয়াদের কাছে গিয়ে বলব, উনি রাতের অন্ধকারে আমাদের অজান্তে চলে গেছেন এবং কোন দিকে গেছেন এরও কোন খোঁজ পাইনি। এরপর যা হওয়ার আছে, তাই হবে। হযরত ইমাম হুসাইন রাদ্বিয়াল্লাহু আয়ালা আনহু বললেন, ঠিক আছে।

যখন রাত হলো, চারিদিকে অন্ধকার ঘণীভূত হলো এবং সৈন্যরা প্রায় ঘুমিয়ে পড়লো, তখন হযরত ইমাম হুসাইন আলাইহিস সালাম নিজের সঙ্গী সাথীদেরকে রওয়ানা হওয়ার জন্য নির্দেশ দিলেন। সবাই বের হয়ে গেলেন। সারারাত এ কাফেলা পথ চলতে থাকল, কিন্তু খোদা তায়ালার রহস্য দেখুন, সারারাত হযরত ইমাম হুসাইন আলাইহিস সালাম উনার কাফেলা চললো, কিন্তু ভোরে তারা তাদেরকে ঐ জায়গায়ই দেখতে পেলেন, যেখান থেকে রওয়ানা শুরু করেছিলেন। এই অবস্থা দেখে সবাই আশ্চর্য হয়ে গেল, এটা কিভাবে হলো। আমরা সারারাত পথ চললাম, কিন্তু সকালে আবার একই জায়গায়। এ কেমন কথা! হুর তাঁদেরকে দেখে জিজ্ঞাসা করলো, আপনারা কি যাননি? ইমাম হুসাইন রদ্বিয়াল্লাহু তায়ালা আনহু বললেন, আমরা সত্যিই চলে গিয়েছিলাম, কিন্তু যাওয়ার পরওতো যেতে পারলাম না, দিশেহারা হয়ে আবার একই জায়গায় ফিরে আসলাম। হুর বললো, ঠিক আছে, চিন্তার কিছু নেই। আজ আমরা পুনরায় দিনভর আলোচনা করতে থাকব এবং আমার সৈন্যদেরকে বলব, আমাদের মধ্যে এখনও কোন ফায়সালা হয়নি, আলোচনা অব্যাহত রয়েছে। আজ রাতেই আপনি চলে যাবেন। হযরত ইমাম হুসাইন আলাইহিস সালাম দ্বিতীয় রাত্রিতেও সঙ্গীদেরকে নিয়ে বের হলেন। সারারাত উনি ও উনার সফরসঙ্গীগণ পথ চললেন। ভোর যখন হলো, তখন পুনরায় উনারা উনাদেরকে সেই একই জায়গায় পেলেন, যেখান থেকে উনারা বের হয়েছিলেন। উপর্যুপরি তিন রাত এ রকম হলো। সারারাত উনারা পথ চলতেন, কিন্তু ভোর হতেই উনাদেরকে ঐ জায়গায় পেতেন, যেখান থেকে উনারা বের হতেন।
চতুর্থ দিন জনৈক পথিক উনাদের পার্শ্ব দিয়ে যাচ্ছিল, হযরত ইমাম হুসাইন আলাইহিস সালাম ওকে ডেকে জিজ্ঞাসা করলেন, হে ব্যক্তি যেই জায়গায় আমরা দাঁড়িয়ে আছি, এই জায়গাটার নাম কি? লোকটি বললো, হযরত! এই জায়গাটার নাম ‘কারবালা’। কারবালা শব্দটি বলার সাথে সাথেই হযরত ইমাম হুসাইন আলাইহিস সালাম বিস্মিত হলেন এবং বললেন, ‘আমার নানাজান ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম ঠিকই বলেছেন, ‘হুসাইন আলাইহিস সালাম কারবালার ময়দানে শহীদ হবেন।’ এটাতো আমার শাহাদাতের স্থান। আমি এখান থেকে কিভাবে চলে যেতে পারি? পরপর তিন রাত্রি প্রস্থান করার পর পুনরায় একই জায়গায় প্রত্যাবর্তন এ কথাই প্রমাণ করে যে, এটা আমার শাহাদাতের স্থান। এখান থেকে আমি কিছুতেই বের হতে পারব না।

হযরত ইমাম হুসাইন আলাইহিস সালাম তাঁর প্রিয়জনদের বললেন, ‘সওয়ারী থেকে অবতরণ করে তাবু খাটিয়ে নিন। নির্দেশ মত উনার সঙ্গী সাথীরা সওয়ারী থেকে অবতরণ করে তাবু খাটাতে শুরু করলেন। কিন্তু যেখানেই তাবুর খুঁটি পুঁততে গেলেন, সেখান থেকেই টাটকা রক্ত বের হতে লাগলো। এই দৃশ্য দেখে সবাই হতভম্ব হয়ে গেলেন। হযরত যয়নাব আলাইহাস সালাম যখন দেখলেন যে, মাটিতে যেখানেই খুঁটি পুঁততে যান, সেখান থেকে রক্ত বের হচ্ছে, তখন তিনি হযরত ইমাম হুসাইন আলাইহিস সালামকে বললেন, প্রিয় ভাইজান! চলুন, আমরা এখান থেকে সরে যাই। এই রক্তাক্ত ভূমি দেখে আমার খুব ভয় করছে, আমার খুবই খারাপ লাগছে। এই রক্তাক্ত ভূমিতে অবস্থান করবেন না। চলুন, আমরা এখান থেকে অন্যত্র চলে যাই। হযরত ইমাম হুসাইন আলাইহিস সালাম বললেন, ওগো আমার প্রাণ-প্রিয় বোন! এখান থেকে আমি বের হতে পারব না। এটা আমার ‘শাহাদাত গাহ’ অর্থাৎ শাহাদাতের স্থান। এখানেই আমাকে শাহাদাত বরণ করতে হবে। এখানেই আমাদের রক্তের নদী প্রবাহিত হবে। এটা সেই ভূমি, যেটা আহলে মুস্তাফা ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার রক্তে রঞ্জিত হবে। এটাই সেই জায়গা, যেখানে ফাতিমাতুয যাহরা রদ্বিয়াল্লাহু তায়ালা আনহা-এর বাগানের বেহেশ্্তী ফুল টুকরো টুকরো হয়ে পতিত হবে এবং তাঁদের রক্তে এই ভূমি লালে লাল হয়ে যাবে। তাই সবাই অবতরণ করো, ছবর, ধৈর্য এবং সাহসের সাথে তাবুতে অবস্থান করো। আমরা এখান থেকে কখনও যেতে পারব না। এখানেই আমাদেরকে ধৈর্য ও সাহসিকতার পরিচয় দিতে হবে। এবং এখানেই শাহাদাত বরণ করতে হবে।’ অতঃপর তাবু খাটিয়ে উনারা কারবালায় অবস্থান নিলেন।

তাঁরা অবস্থান নেয়ার পর থেকে ইবনে যিয়াদ ও ইয়াযীদের পক্ষ থেকে সৈন্যবাহিনী একদলের পর একদল আসতে লাগল। যেই দলই আসে, সবাই ইয়াযীদের পক্ষ থেকে হযরত ইমাম হুসাইন আলাইহিস সালাম উনার কাছে এ নির্দেশটাই নিয়ে আসল- ‘হযরত ইমাম হুসাইন আলাইহিস সালামকে গিয়ে বলো, তিনি যেন ইয়াযীদের কাছে বাইয়াত গ্রহণ করেন। যদি তিনি বাইয়াত গ্রহণ করতে রাজী হন, তখন উনাকে কিছু বলোনা, উনাকে ধরে আমার কাছে নিয়ে এসো। আর যদি বাইয়াত গ্রহণ করতে অস্বীকার করেন, তখন তাঁর সাথে যুদ্ধ করো এবং তাঁর মস্তক কর্তন করে আমার কাছে পাঠিয়ে দাও।’ এভাবে সৈন্য বাহিনীর যেই দলটিই আসতে লাগল, তারা একই হুকুম নিয়ে আসল। হযরত ইমাম হুসাইন আলাইহিস সালাম বললেন, ‘এটাতো হতেই পারে না যে, আমি ইয়াযীদের হাতে বাইয়াত গ্রহণ করব!

হযরত ইমাম হুসাইন আলাইহিস সালাম অত্যন্ত দুঃখ প্রকাশ করে বলেন, ‘আমাকে আহ্বান করা হয়েছে আমার হাতে বাইয়াত গ্রহণ করার জন্য। আর এখন আমাকে বাধ্য করা হচ্ছে ইয়াযীদের হাতে বাইয়াত হওয়ার জন্য! এই জন্যইতো আমি মদীনা শরীফ ছেড়ে মক্কা শরীফ-এ চলে গিয়েছিলাম। তাহলে কি আমি এখন মক্কা শরীফ থেকে এখানে এসেছি ইয়াযীদের হাতে বাইয়াত হওয়ার জন্য? এটা কিছুতেই হতে পারে না। আমি ইয়াযীদের হাতে কখনো বাইয়াত গ্রহণ করব না।’ ওরা বলল, আপনি যদি ইয়াযীদের হাতে বাইয়াত গ্রহণ করতে রাজী না হন, তাহলে যুদ্ধের জন্য প্রস্তুত হোন। হযরত ইমাম হুসাইন আলাইহিস সালাম বললেন, ‘আমিতো যুদ্ধের জন্যও আসিনি। যুদ্ধের কোন ইচ্ছাও পোষণ করি না।’ ওরা বলল, এরকমতো কিছুতেই হতে পারে না। হয়তো বাইয়াত গ্রহণ করতে হবে নতুবা যুদ্ধ করতে হবে।

হযরত ইমাম হুসাইন আলাইহিস সালাম যখন দেখলেন, এদের উদ্দেশ্য খুবই খারাপ তখন তিনি তাদের সামনে তিনটি শর্ত পেশ করলেন। তিনি বললেন, ‘শোন! কূফাবাসী আমার কাছে চিঠি লিখেছে এবং চিঠিতে এমন কথা লিখা
ছিল, যার জন্য শরীয়ত মতে আমি এখানে আসতে বাধ্য হয়েছি। এখন যখন তারা বেঈমান হয়ে গেছে, আমি তোমাদের সামনে তিনটা শর্ত পেশ করছি; তোমাদের যেটা ইচ্ছা সেটা গ্রহণ করো এবং সে অনুসারে কার্য সম্পাদন করো- ১। হয়তো আমাকে মক্কা শরীফ-এ চলে যেতে দাও। সেখানে হেরেম শরীফ-এ অবস্থান করে ইবাদত-বন্দেগীতে নিয়োজিত থেকে বাকী জীবনটা অতিবাহিত করব ২। যদি মক্কা শরীফ-এ যেতে না দাও, তাহলে অন্য কোন দেশে যাওয়ার সুযোগ দাও, যেখানে কাফির বা মুশরিকরা বসবাস করে। ওখানে আমি দ্বীনী তা’লীম-তালক্বীনের কাজে নিয়োজিত থাকবো এবং ওদেরকে মুসলমান বানানোর প্রচেষ্টা চালাতে থাকবো ৩। যদি অন্য কোন দেশেও যেতে না দাও তাহলে এমন করতে পার যে, আমাকে ইয়াযীদের কাছে নিয়ে চলো। আমি তার সাথে বসে আলোচনা করব। হয়তঃ কোন সন্ধিও হয়ে যেতে পারে, এই নাজুক অবস্থার উন্নতিও হতে পারে এবং রক্তপাতের সম্ভাবনাও দূরীভূত হতে পারে।

ইয়াযীদ বাহিনী এ তিনটি শর্ত কূফার গভর্নর ইবনে যিয়াদের কাছে পাঠিয়ে দিল। সে এ শর্তগুলোর কথা শুনে তেলে বেগুনে জ্বলে উঠল এবং আমর বিন ইবনে সা’আদ’ যে সেনাপতি ছিল তাকে লিখল যে, আমি তোমাকে সালিশকার বা বিচারক বানিয়ে পাঠাইনি যে, তুমি আমার এবং হযরত ইমাম হুসাইন আলাইহিস সালাম উনার মধ্যে সন্ধি করার ব্যবস্থা করবে; আমি তোমাকে পাঠিয়েছি হযরত ইমাম হুসাইন আলাইহিস সালামকে বাইয়াত গ্রহণ করতে বলার জন্য অথবা উনার সাথে যুদ্ধ করে তাঁর মস্তক আমার কাছে পাঠিয়ে দেয়ার জন্য। অথচ তুমি সন্ধির চিন্তা-ভাবনা করছো এবং এর জন্য বিভিন্ন তদবীর করছো। আমি আবার তোমাকে শেষবারের মতো নির্দেশ দিচ্ছি, ইমাম হুসাইন রদ্বিয়াল্লাহু তায়ালা আনহু যদি বাইয়াত গ্রহণ করতে অস্বীকার করেন, তাঁর সঙ্গে যুদ্ধ করো এবং মস্তক কেটে আমার কাছে পাঠিয়ে দাও। যখন হযরত ইমাম হুসাইন আলাইহিস সালামকে এই নির্দেশের কথা শুনানো হলো, তখন তিনি বললেন, ‘আমার পক্ষ থেকে যা প্রমাণ করার ছিল, তা প্রমাণিত হয়েছে এবং যা বলার ছিল তা বলা হয়েছে। এখন তোমাদের যা মর্জি তা করো। আমি ইয়াযীদের হাতে কিছুতেই বাইয়াত গ্রহণ করব না।’ ওরা বলল, তাহলে যুদ্ধের জন্য প্রস্তুত হোন। তিনি বললেন, ‘তোমাদের পক্ষ থেকে যা করার তোমরা কর। আমার পক্ষ থেকে যা করার আমি করব।”
ঘোড়ার বেয়াদবকে আগুনে নিক্ষেপ করল


ইমামে আলী মকাম, ইমামে আরশে মকাম, ইমাম হোসাইন তৃষ্ণায়ে কাম, হযরত সায়্যিদুনা ইমাম হোসাইন (রাদ্বিআল্লহু তা’আলা আনহু) ১০ই মুহাররামুল হারাম, রোজ জুমাবার, ৬১ হিজরীতে ইয়াজিদ বাহিনী জুলুম নির্যাতনের প্রতিবাদে যখন কারবালা প্রান্তরে ভাষণ দিচ্ছিলেন, তখন তাঁর মজলুম কাফিলার তাবু সংক্ষণের নিমিত্তে খননকৃত খন্দকে প্রজ্জালিত আগুনের দিকে ইঙ্গিত করে মালিক বিন উরওয়াহ নামক এক বেয়াদব। লাগামহীনভাবে বকাবকি করতে লাগল, হে হোসাইন রাদ্বিআল্লাহু তা’আলা আনহু! তুমি জাহান্নামের আগুনের পূর্বে এখানেই আগুন জ্বালিয়ে দিয়েছ। তার কথার জবাবে হযরত সায়্যিদুনা ইমামে আলী মকাম (রাদ্বিআল্লাহু তা’আলা আনহু) বললেন,
كذبت يا عدو الله

কাজ্জাবতাইয়ায়্যাদুওয়াল্লাহ্ ” হে আল্লাহ্‌র দুশমন! তুমি মিথ্যা বলছ। তোমার কি ধারণা, معاذ الله #মায়্যায্বাল্লাহ্ ” আমি দোযখে যাব? ইমামে আলী মকামের কাফিলার একজন নিবেদিত প্রাণ যুবক হযরত সায়্যিদুনা মুসলিম বিন আওসাজা- সে নরাধম ইয়াজিদীর মুখে তীর নিক্ষেপের জন্য হযরত ইমামে আলী মকাম (রাদ্বিআল্লাহু তা’আলা আনহু) তাঁকে তীর নিক্ষেপের অনুমতি না দিয়ে বললেন, ” আমি আমাদের পক্ষ থেকে যুদ্ধের সূচনা করতে চাই না।

অতঃপর ইমামে তৃষ্ণায়েকাম(রাদ্বিআল্লাহু তা’আলা আনহু) হাত উত্তোলন করে আল্লাহর দরবারে দু’আ করলেন, “#ইয়ারাব্বেকাহ্হার! আপনি এ পাপিষ্ঠকে পরকালের দোযখের আগুনের শাস্তি দেয়ার পূর্বে ইহকালেও আগুনের শাস্তি প্রদান করুন। ” বেশি দেরী হল না, হযরত ইমামে আলী মকাম (রাদ্বি’আল্লাহু তা’আলা আনহুর) দু’আ সাথে সাথেই বারগাহে রাব্বুল ইজ্জতে কবুল হয়ে গেল। সে নরাধমের ঘোড়ার পা মাটির একটি গর্তে পতিত হয়ে ঘোড়াটি প্রচন্ড বেগে ধাক্কা খেল। ফলে সে নরাধম দুরাচার ঘোড়ার পৃষ্ঠ হতে পড়ে ধারাশায়ী হল, তার পা দুটি ঘোড়ার রেকাবের সাথে আটকে গেল। ঘোড়া তাকে টেনে-হেঁচড়ে নিয়ে গিয়ে সে খন্দকের লেলিহান আগুনে নিক্ষেপ করল। আর সে নরাপিশাচ আগুনে জ্বলে পুড়ে ছাই হয়ে গেল। তার এ করুন পরিণতি দেখে ইমামে আলী মকাম (রাদ্বিআল্লাহু তা’আলা আনহু) সিজদায়ে শোকর আদায় করলেন এবং আল্লাহ্‌ তা’আলার প্রশংসা করে বললেন, হে আল্লাহ্‌! আপনার শুকরিয়া জ্ঞাপন করছি, আপনি আমার চোখের সামনে রাসূলের পরিবারের একজন দুশমানকে শাস্তি দিলেন।
_[সাওয়ানেহে কারবালা, ৮৮ পৃষ্ঠা ]
আহলে বাইত পাক ছে বে বাকীয়াঁ গেয়াঁ গুস্তাখিয়াঁ
লা’নাতুল্লাহি আলাইকুম দুশমনানে আহলে বাইত।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here